, , ,
h9090
ব্রেকিং নিউজ
  • বরিশালে বিএনপি’র মিছিলে পুলিশের বাধা
  • বরিশালে শিক্ষকদের প্রতিবাদ সভা
  • হিজলায় এক রাতে তিন ঘরে ডাকাতি
  • উজিরপুরে সন্ধ্যা নদীতে ৩ লক্ষাধীক টাকার অবৈধ জাল আটক
  • বাকেরগঞ্জে ইয়াবাসহ আটক -১

Notice: Undefined variable: dexc in /home/barisalmail24/public_html/wp-content/themes/newspaper.bak/inc/retrive_functions.php on line 279

Notice: Undefined variable: cexc in /home/barisalmail24/public_html/wp-content/themes/newspaper.bak/inc/retrive_functions.php on line 282
Add
Tuesday, August 4, 2015 6:14 pm
A- A A+ Print

হুমকির মুখে মূল বেড়িবাধঁ হুমকীতে কুয়াকাটার ভাঙ্গন রোধে মহাপরিকল্পনা হচ্ছে

স্টাফ রিপোর্টার ॥ সাগরের উত্তল ঢেউয়ের তোরে ভেঙ্গে যাচ্ছে পৃথীবির অন্যতম সী-বীচ সাগর কন্য কুয়াকাটা। বিলিন হচ্ছে প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের বেলাভূমি কুয়াকাটার সৈকত লাগোয়া বনাঞ্চল। যার কারণে বিনষ্ট হচ্ছে সৈকতের শোভা-বর্ধনকারী বিভিন্ন বাগানসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ন দর্শনীয় স্থান। সম্প্রতি ঘূর্নিঝড় কোমেনের প্রভাবে সাগরের পানি বৃদ্ধি পেয়ে লন্ডভন্ড হয়ে গেছে এ সমুদ্র সৈকত। কুয়াকাটা কর্তৃপক্ষের দাবী, এ প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবেলায় দরকার মহাপরিকল্পনা। সেই পরিকল্পনার আওতায় স্থাপন করা হবে জিওটিউব। সম্প্রতি বেশ কয়েকদিনের ভারী বৃষ্টি ও মৌসুমী লঘুচাপের কারনে সাগরের পানির উচ্চতা বৃদ্ধি পায়। পাশাপাশি তীব্র উত্তল ঢেউয়ের তোরে কুয়াকাটায় ব্যাপক ভাঙনের সৃষ্টি হয়। ভাঙনের তীব্রতায় উজার হয়ে যায় সেখান বনাঞ্চল। বিশেষ করে সৈকত লাগোয়া শোভা বর্ধনকারী নারিকেল ও ঝাউবাগানসহ একের পর এক দর্শনীয় স্থান আক্রান্ত হয়। এমনকি কুয়াকাটার মূল রক্ষাবাঁধ চরম ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে। স্থানীয় বাসিন্দারা জানিয়েছে, প্রতিবছর বর্ষা মৌসুমে ভূমিক্ষয়ের কারণে পাল্টে যাচ্ছে কুয়াকাটার মানচিত্র। তেমনি সৈকতের নারিকেলকুঞ্জ, শালবন, ঝাউবাগানসহ সৈকত লাগোয়া বনাঞ্চল সমুদ্রে বিলীন হয়ে যাচ্ছে। এ অবস্থা থেকে রক্ষায় দরকার দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনা দরকার বলে স্থানীয়দের অভিমত। তারা আরো জানান, এভাবে কুয়াকাটা বিপন্ন হয়ে গেলে পর্যটকরা আসবে না। স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, কুয়াকাটার জিরোপয়েন্ট থেকে পূর্ব ও পশ্চিম দিকের নারিকেল, ঝাউ, তাল বাগানসহ সবুজ বনাঞ্চল ঢেউয়ের তান্ডবে ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। সৈকতঘেঁষা বনাঞ্চলের বিভিন্ন প্রজাতির শত শত গাছ উপড়ে পড়েছে। যা সম্প্রতি প্রশাসনের পক্ষ থেকে সরিয়ে নেয়া হয়েছে। এমনকি বরিশাল-কুয়াকাটা মহাসড়কটি সৈকতে যাওয়ার স্থানটির প্রায় ১০ ফুট বিলীন হয়ে গেছে। এমন অবস্থায় পৃথীবির অন্যতম সমুদ্র সৈকত(যেখানে বসে সূর্য উদয় ও অস্ত দেখা যায়) এখন বিপন্ন হওয়ার পথে রয়েছে। পরিবেশ ভারসাম্যহীন হয়ে পড়বে ও পর্যটকশূন্য হয়ে যাবে কুয়াকাটা এমনটাই আশঙ্কা করেছেন স্থানীয়রা। হোটেল সী-কুইন মালিক জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, সমুদ্র সৈকত বিলীন হয়ে গেলে কুয়াকাটাই অন্ধকার হয়ে পড়ে। তাই সরকারকে জরুরী ভিত্তিতে এ সমুদ্র সৈকত রক্ষায় দ্রুত পদপেক্ষ নিতে হবে। কুয়াকাটা পুলিশ ফাড়িঁর ইনচার্য সঞ্জয় মন্ডল জানান, পানি বৃদ্ধি পেয়ে সাগরের ঢেউয়ের তোরে যথেষ্ট ক্ষতি হয়ে সৈকতের। গাছপালা উপড়ে পড়েছে। লেবুরচর থেকে গঙ্গামতি পর্যন্ত বিভিন্ন স্থানে রাস্তা ও সাগরের পাড় ভেঙ্গে গেছে। প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্য বিলিন হয়ে গেছে। এমন অবস্থা চলতে থাকলে বীচ রক্ষা কঠিন হয়ে পরবে। তিনি বলেন, বরিশাল কুয়াকাটা মহাসড়কের বীচের আংশে প্রায় ২০ হাত সাগরের ভাঙনে চলে গেছে। তিনি আরো বলেন, ১৮ কিলোমিটার সী-বীচের প্রায় ১০ কিলোমিটার পযর্ন্ত সাগর পাড়ের বিভিন্ন স্থান ক্ষতির সম্মুখিন হয়েছে। কিন্তু যে সব স্থানে ব্লক ফেলা আছে সেখানে তেমন ক্ষতি করতে পারেনি। পানি উন্নয়ন বোর্ড কলাপাড়ার সার্কেলের নির্বাহী প্রকৌশলী আবুল খায়ের জানান, কোমেন এর প্রভাবে পানি বৃদ্ধি পেয়ে সাগরের ঢেউ তীর আগাত করে ব্যাপক ক্ষতি করেছে। যা সংস্কারে প্রায় ২০কোটি টাকা প্রয়োজন। জরুরী ভিত্তিতে বিভিন্ন স্থানে বেড়িবাধঁ স্থাপনের কাজ শুরু করা হচ্ছে। পরে শুকনা মৌসুমে মহাপরিকল্পনার মাধ্যমে ব্যবস্থা নেয়া হবে। সে সময় জিওটিউব ব্যবহার করে ঢেউয়ের ক্ষতির হাত থেকে সী-বীচকে রক্ষা করা হবে। বর্তমানে এক প্রকল্প তৈরি করে উচ্চপদস্থ্য কর্মকর্তাদের কাছে প্রেরণ করা হয়েছে বলে তিনি জানান। এব্যাপারে কুয়াকাটা সী বীচ ম্যানেজমেন্ট কমিটির সভাপতি ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জাহাঙ্গীর হোসেন জানান, কুয়াকাটার কারপেটিং রাস্তা গুলো ভেঙ্গে গেছে। উপচেপড়া গাছগুলো অপসারণ করা হয়েছে। পরবর্তিতে মহাপরিকল্পনা করে স্থায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে। তিনি বলেন, সাগরের ভাঙন থেকে সৈকতরক্ষা করা কঠিন কাজ। এ জন্য সাময়িক ভাবে কাজ চালানো হচ্ছে।## [fbcomments url="http://barisalmail24.com/archives/8977" count="on" num="5" countmsg="Comments!"]
 বরিশাল মেইল২৪.কম

হুমকির মুখে মূল বেড়িবাধঁ হুমকীতে কুয়াকাটার ভাঙ্গন রোধে মহাপরিকল্পনা হচ্ছে

Tuesday, August 4, 2015 6:14 pm

স্টাফ রিপোর্টার ॥ সাগরের উত্তল ঢেউয়ের তোরে ভেঙ্গে যাচ্ছে পৃথীবির অন্যতম সী-বীচ সাগর কন্য কুয়াকাটা। বিলিন হচ্ছে প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের বেলাভূমি কুয়াকাটার সৈকত লাগোয়া বনাঞ্চল। যার কারণে বিনষ্ট হচ্ছে সৈকতের শোভা-বর্ধনকারী বিভিন্ন বাগানসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ন দর্শনীয় স্থান। সম্প্রতি ঘূর্নিঝড় কোমেনের প্রভাবে সাগরের পানি বৃদ্ধি পেয়ে লন্ডভন্ড হয়ে গেছে এ সমুদ্র সৈকত। কুয়াকাটা কর্তৃপক্ষের দাবী, এ প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবেলায় দরকার মহাপরিকল্পনা। সেই পরিকল্পনার আওতায় স্থাপন করা হবে জিওটিউব।

সম্প্রতি বেশ কয়েকদিনের ভারী বৃষ্টি ও মৌসুমী লঘুচাপের কারনে সাগরের পানির উচ্চতা বৃদ্ধি পায়। পাশাপাশি তীব্র উত্তল ঢেউয়ের তোরে কুয়াকাটায় ব্যাপক ভাঙনের সৃষ্টি হয়। ভাঙনের তীব্রতায় উজার হয়ে যায় সেখান বনাঞ্চল। বিশেষ করে সৈকত লাগোয়া শোভা বর্ধনকারী নারিকেল ও ঝাউবাগানসহ একের পর এক দর্শনীয় স্থান আক্রান্ত হয়। এমনকি কুয়াকাটার মূল রক্ষাবাঁধ চরম ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে। স্থানীয় বাসিন্দারা জানিয়েছে, প্রতিবছর বর্ষা মৌসুমে ভূমিক্ষয়ের কারণে পাল্টে যাচ্ছে কুয়াকাটার মানচিত্র। তেমনি সৈকতের নারিকেলকুঞ্জ, শালবন, ঝাউবাগানসহ সৈকত লাগোয়া বনাঞ্চল সমুদ্রে বিলীন হয়ে যাচ্ছে। এ অবস্থা থেকে রক্ষায় দরকার দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনা দরকার বলে স্থানীয়দের অভিমত। তারা আরো জানান, এভাবে কুয়াকাটা বিপন্ন হয়ে গেলে পর্যটকরা আসবে না।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, কুয়াকাটার জিরোপয়েন্ট থেকে পূর্ব ও পশ্চিম দিকের নারিকেল, ঝাউ, তাল বাগানসহ সবুজ বনাঞ্চল ঢেউয়ের তান্ডবে ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। সৈকতঘেঁষা বনাঞ্চলের বিভিন্ন প্রজাতির শত শত গাছ উপড়ে পড়েছে। যা সম্প্রতি প্রশাসনের পক্ষ থেকে সরিয়ে নেয়া হয়েছে। এমনকি বরিশাল-কুয়াকাটা মহাসড়কটি সৈকতে যাওয়ার স্থানটির প্রায় ১০ ফুট বিলীন হয়ে গেছে। এমন অবস্থায় পৃথীবির অন্যতম সমুদ্র সৈকত(যেখানে বসে সূর্য উদয় ও অস্ত দেখা যায়) এখন বিপন্ন হওয়ার পথে রয়েছে। পরিবেশ ভারসাম্যহীন হয়ে পড়বে ও পর্যটকশূন্য হয়ে যাবে কুয়াকাটা এমনটাই আশঙ্কা করেছেন স্থানীয়রা।

হোটেল সী-কুইন মালিক জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, সমুদ্র সৈকত বিলীন হয়ে গেলে কুয়াকাটাই অন্ধকার হয়ে পড়ে। তাই সরকারকে জরুরী ভিত্তিতে এ সমুদ্র সৈকত রক্ষায় দ্রুত পদপেক্ষ নিতে হবে। কুয়াকাটা পুলিশ ফাড়িঁর ইনচার্য সঞ্জয় মন্ডল জানান, পানি বৃদ্ধি পেয়ে সাগরের ঢেউয়ের তোরে যথেষ্ট ক্ষতি হয়ে সৈকতের। গাছপালা উপড়ে পড়েছে। লেবুরচর থেকে গঙ্গামতি পর্যন্ত বিভিন্ন স্থানে রাস্তা ও সাগরের পাড় ভেঙ্গে গেছে। প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্য বিলিন হয়ে গেছে। এমন অবস্থা চলতে থাকলে বীচ রক্ষা কঠিন হয়ে পরবে। তিনি বলেন, বরিশাল কুয়াকাটা মহাসড়কের বীচের আংশে প্রায় ২০ হাত সাগরের ভাঙনে চলে গেছে। তিনি আরো বলেন, ১৮ কিলোমিটার সী-বীচের প্রায় ১০ কিলোমিটার পযর্ন্ত সাগর পাড়ের বিভিন্ন স্থান ক্ষতির সম্মুখিন হয়েছে। কিন্তু যে সব স্থানে ব্লক ফেলা আছে সেখানে তেমন ক্ষতি করতে পারেনি।

পানি উন্নয়ন বোর্ড কলাপাড়ার সার্কেলের নির্বাহী প্রকৌশলী আবুল খায়ের জানান, কোমেন এর প্রভাবে পানি বৃদ্ধি পেয়ে সাগরের ঢেউ তীর আগাত করে ব্যাপক ক্ষতি করেছে। যা সংস্কারে প্রায় ২০কোটি টাকা প্রয়োজন। জরুরী ভিত্তিতে বিভিন্ন স্থানে বেড়িবাধঁ স্থাপনের কাজ শুরু করা হচ্ছে। পরে শুকনা মৌসুমে মহাপরিকল্পনার মাধ্যমে ব্যবস্থা নেয়া হবে। সে সময় জিওটিউব ব্যবহার করে ঢেউয়ের ক্ষতির হাত থেকে সী-বীচকে রক্ষা করা হবে। বর্তমানে এক প্রকল্প তৈরি করে উচ্চপদস্থ্য কর্মকর্তাদের কাছে প্রেরণ করা হয়েছে বলে তিনি জানান।

এব্যাপারে কুয়াকাটা সী বীচ ম্যানেজমেন্ট কমিটির সভাপতি ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জাহাঙ্গীর হোসেন জানান, কুয়াকাটার কারপেটিং রাস্তা গুলো ভেঙ্গে গেছে। উপচেপড়া গাছগুলো অপসারণ করা হয়েছে। পরবর্তিতে মহাপরিকল্পনা করে স্থায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে। তিনি বলেন, সাগরের ভাঙন থেকে সৈকতরক্ষা করা কঠিন কাজ। এ জন্য সাময়িক ভাবে কাজ চালানো হচ্ছে।##

সম্পাদকঃ মোঃ জিহাদ রানা।
গির্জ্জা মহল্লা,বরিশাল।
মোবাইল: ০১৭৫৭৮০৭৩৮৩
ইমেইল : barisalmail24@gmail.com
বরিশালের একটি ২৪/৭ অনলাইন নিউজ মিডিয়া।